শনিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২১ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

টাঙ্গুয়ার হাওর রক্ষায় সাত দফা দাবিতে স্মারকলিপি



টাঙ্গুয়ার হাওরের প্রকৃতি, পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য উন্নয়নে স্থায়ী ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ গঠনসহ সাত দফা দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে হাওর বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটি। সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে এ স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসকের পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বিজন কুমার সিংহ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন হাওর বাঁচাও আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আবু সুফিয়ান, সাধারণ সম্পাদক বিজন সেন রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক কুদরত পাশা, প্রচার সম্পাদক আনোয়ারুল হক প্রমুখ।

স্মারক লিপিতে বলা হয়, টাঙ্গুয়ার হাওরের বর্তমান ব্যবস্থাপনা বাতিল ও বিগত ২০ বছরের দুর্নীতি ও অনিয়মের তদন্ত করতে হবে। এ ছাড়া টাঙ্গুয়ার হাওরের জীববৈচিত্র্য ফিরিয়ে আনতে অন্তর্বর্তীকালীন ব্যবস্থা হিসেবে ৫ বছরের জন্য টাঙ্গুয়ার হাওরে মাছ ও পাখি ধরা এবং বনজ সম্পদ আহরণ বন্ধ করতে হবে।

স্মারকলিপিতে আরও বলা হয়, হাওরের জনসাধারণ ও পর্যটকের প্রবেশাধিকার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। টাঙ্গুয়ার হাওরের জীববৈচিত্র্য রক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় আইন প্রণয়ন করে ‘টাঙ্গুয়ার হাওর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ’ গঠন করতে হবে।

টাঙ্গুয়ার হাওর মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত। মেঘালয় পাহাড় থেকে ৩০টিরও বেশি ঝরনা এসে মিশেছে এই হাওরে। তিন উপজেলার ১৮টি মৌজায় ৫১টি হাওরের সমন্বয়ে ৯ হাজার ৭২৭ হেক্টর এলাকা নিয়ে টাঙ্গুয়ার হাওর জেলার সবচেয়ে বড় জলাভূমি। একসময় গাছ, মাছ, পাখি আর প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্যের আঁধার ছিল এই হাওর। ১৯৯৯ খ্রিষ্টাব্দে টাঙ্গুয়ার হাওরকে ‘প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •