রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯

ভূয়া কচুরিপানার ছবি দিয়ে মিথ্যা ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে চলছে সমালোচনা



জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার উপ্তিরপাড় গ্রামে কচুরিপনা নিয়ে সংঘর্ষ, ভূয়া ছবি দিয়ে মিথ্যা, ভিত্তিহীন সংবাদ বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও প্রিন্ট মিডিয়া প্রকাশ হওয়ায় গণমাধ্যম কর্মীদের বিরুদ্ধে  নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন উপজেলার সর্বস্তরের জনসাধরণ। এধরণের নিউজ নামী-দামী গণমাধ্যমে প্রকাশ করে দেশ-বিদেশের বাংলাভাষী জনগণকে বিভ্রান্তি করায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে চলছে সমালোচনার ঝড়।

জানা যায়, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার উপ্তিপাড়া গ্রামে চলতি বছর গত ২৩ জানুয়ারী সকালে উপ্তিরপাড় গ্রামের আমীর আলী ও তখলিছ আলী গংদের মধ্যে পূর্ব বিরোধ নিয়া মারামারির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ ১০ ব্যক্তিকে আটক করে আদালতে চালান দেয়।

উক্ত ঘটনারকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার( ২০ ও ২১ ফেব্রুয়ারী) তারিখে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের উপ্তিরপাড় গ্রামে “কচুরিপানা নিয়ে দুইপক্ষের তুমুল মারামারি” শিরোনামে সুনামগঞ্জের একটি প্রিন্ট মিডিয়া ও দেশের শর কিছু নামী দামী অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও প্রিন্ট মিডিয়া সংবাদ প্রকাশ করে। এতে দেশ সহ সুনামগঞ্জ জেলা জুড়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়ায় দেখা দেয়।

এব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দৈনিক সুনামকণ্ঠ পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার হোসাইন আহমদ বলেন, অনেক অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়ায় নিউজটি আমি পড়েছি। আমি এ উপজেলার বাসিন্দা। এধরণের মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করার আগে স্ব উপজেলায় কর্মরত গনমাধ্যম কর্মীদের নিকট থেকে তথ্য নেওয়া প্রয়োজন ছিল। তদুপরি বিশেষ করে পুলিশ প্রসাশনের সাথে যোগযোগ করাও প্রয়োজন ছিল। অধিকাংশ নিউজ পোর্টাল নিজেদের ইচ্ছামতো কপি কাট করেছেন। সংবাদ যাচাই না করে প্রকাশ করা অতি নিন্দনীয় কাজ।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদাক মো. আতাউর রহমান বলেন, গণম্যাম হওয়া উচিত সত্যবাদী। কিন্তু গণমাধ্যম যদি মিথ্যা, ভিত্তিহীন সংবাদ প্রচার করে। তাহলে আজ দেশের গণমাধ্যমে কোন দিকে ধাবিত হচ্ছে। গণমাধ্যম সাদাকে সাদা বলবে, কালোকে কালো বলবে। কিন্তু এধরণের মিথ্যা সংবাদ প্রচারের আগে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবরে মতামত নেওয়ার প্রয়োজন ছিল। কান নিয়ে গেছে চিলে, কানেতো হাত দিতে হবে। পরে না হয় চিলের বিরুদ্ধে নিউজ করতে হবে।

উপজেলার পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সফিকুল ইসলাম জানান, গত মঙ্গলবারে আমার ইউনিয়নের অধীনে উপ্তিরপাড় সাকিনে কোন মারপিটের ঘটনা ঘটে নাই। তবে আমি জেনেছি। মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। তমে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করে জনগণকে বিভ্রান্ত করা খুবই নিন্দনীয়।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ চৌধুরী জানান, গত মঙ্গলবার উপ্তিরপাড় তথা আমার থানা এলাকায় কোন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে নাই। কাউকে ধরে চালানও দেই নাই। গত মাসের ২৩ তারিখে উপ্তিপাড়ে জলমহাল নিয়ে মারামারি হয়েছিল। তখন ১০ জনকে ধরে চালান দিয়েছি। মামলাও দায়ের হয়েছে। তবে যে নিউজ করা হয়েছে। সে নিউজটি আসলে ভ‚য়া।

সংবাদটি শেয়ার করুন