শনিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২১ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

বিয়ানীবাজারের জন্য কল্যাণকর প্রকল্প হাতে নিন : পরিকল্পনা মন্ত্রী



পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেছেন, বর্তমান সরকার সমাজে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করতে বদ্ধপরিকর। এজন্য অপরাধী যেই হোক, দলমত নির্বিশেষে তাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে। আমাদের যে সম্পদ আছে তার বৃহদাংশ গ্রামের দারিদ্র্য মানুষের কল্যাণে কাজে লাগাতে চাই। তিনি বলেন, সিলেটের উন্নয়নে আমরা আন্তরিক। ঢাকা টু সিলেট মহাসড়ক নির্মাণ, রেললাইন ডুয়েলগেজ করা হবে।

মন্ত্রী স্থানীয়ভাবে প্রকল্প নিতে সকল ধর্মের বয়স্ক ব্যক্তি, শিশু এবং মেয়েদের কথা চিন্তা করার আহ্বান জানান। তাঁরা উপকৃত হলেই আমার প্রয়োজন নেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রকল্প অনুমোদন করবেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে বিয়ানীবাজার পৌর এলাকার অনিপন্ডিত পাড়ায় শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেবের রথযাত্রার মহোৎসব উদ্বোধন উপলক্ষে শ্রীবাস অঙ্গন ইস্কন মন্দির প্রাঙ্গনে আয়োজিত আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান আরও বলেন, সুনামগঞ্জে হাজার হাজার গ্রাম এখনো যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। তাদের কাছে সহজে যাওয়া যায়না। এজন্য অনেকের মতো আমিও বলি, সুনামগঞ্জে ‘বর্ষায় নাও আর শীতে পাও’। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে ছাতক টু সুনামগঞ্জ রেললাইন নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে এবং সুনামগঞ্জ টু ময়মনসিংহ সড়ক ও রেললাইন প্রকল্প তৈরি করা হচ্ছে। এমনকি ঢাকা থেকে জগনন্নাথপুর হয়ে সুনামগঞ্জ যেতে ৭০ কি:মি: পথ কমাতে বিশাল রাণীগঞ্জ সেতু নির্মাণ করছি। তিনি বলেন, আমাদের হাতে কাজ বেশি কিন্তু সময় কম। এজন্য আমরা তাড়াতাড়ি উন্নয়ন কাজ শেষ করতে চাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী প্রায়ই আমাদেরকে কাজের জন্য তাগাদা দেন। দেশের মানুষের জন্য তাঁর যে ভালোবাসা তা স্বচক্ষে না দেখলে কেউ বুঝতে পারবে না।

পরিকল্পনা মন্ত্রী আরও বলেন, বিয়ানীবাজারে আশানুরূপ উন্নয়ন হয়েছে। এরপরও কাজ করার সুযোগ রয়েছে। এলাকায় সকল ধর্মের নানা মতের সাধারণ দরিদ্র নিম্ন আয়ের মানুষ রয়েছেন। যারা সামাজিকভাবে নিপীড়িত, ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত, আড়ালে চোখ বন্ধ করে কাঁদে, তাদের দিকে আপনারা নজর দিন। তাদের কল্যাণের জন্য যদি কোন প্রকল্পের (রাস্তাঘাট, কালভার্ট অন্যান্য) প্রয়োজন হয় তাহলে নিন। আমি সহযোগীতা করবো, আমাদের নেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তা অনুমোদন দেবেন।

ইসকনের অধ্যক্ষ সিদ্ধগৌড়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিয়ানীবাজার পৌরসভার মেয়র মো. আব্দুস শুকুর, উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজী আরিফুর রহমান, থানা অফিসার ইনচার্জ অবনী শংকর কর প্রমুখ।

পরে পৌরশহরের সুপাতলায় পঞ্চখন্ড বাসুদেব সেবক সংঘ আয়োজিত মতবিনিমিয় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান।

সংঘের সভাপতি ও বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর দ্বারকেশ চন্দ্র নাথের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, সিলেট অঞ্চলের মানুষের মধ্যে ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রয়েছে। এজন্য আমরা সাম্প্রদায়িকতা ও উগ্রবাদের বিরুদ্ধে এক হয়ে কাজ করতে পারি। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার সবধর্মের উপাসনালয়ের উন্নয়নের জন্য অনুদান প্রদান করছে। এখানে কোর ধরণের বৈষম্য নেই। মন্ত্রী এতদ্বঞ্চলের অতীত ঐতিহ্য বজা রাখতে দলমত নির্বিশেষে সবার প্রতি আহ্বান জানান।

এ সময় বক্তব্য রাখেন বিয়ানীবাজার পৌরসভার মেয়র মো. আব্দুস শুকুর, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জামাল হোসেন প্রমুখ।

এদিকে পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান বিয়ানীবাজার এসে পৌছলে তাঁকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান উপজেলা পরিষদ ও পৌরসভার দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দ। এ সময় উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে মন্ত্রীকে পুলিশের একটি চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •