সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২ | ১০ মাঘ ১৪২৮

সুনামগঞ্জ-০৩ (দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর ) কে হচ্ছেন জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের প্রার্থী



সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনে কে হচ্ছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী। প্রবাসী অধ্যুষিত এই নির্বাচনী এলাকায় সরকার দলীয় বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন এবারও তিনিই (এমএ মান্নান) পাবেন, এমন প্রচারণা রয়েছে জেলাজুড়ে। হেভিওয়েট এই প্রার্থীর সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের হয়ে লড়বে কে? এই আলোচনাও আছে জেলাব্যাপী রাজনৈতিক নেতা কর্মীর মধ্যে।
এই আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হবার জন্য যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরেছেন ৫ প্রবাসী বিএনপি নেতা। যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদও তাঁর সমর্থকদের মাধ্যমে মনোনয়ন ফরম কিনে জমা দিয়েছেন। তবে তিনি এখনও দেশে ফিরেননি। দেশে ফিরলে তিনিই এবার ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হবেন, এমনটা নিশ্চিত করেছেন নির্বাচনী এলাকার দুই উপজেলার বিএনপি সভাপতি। কিন্তু কয়ছর এম আহমদ’র দেশে ফেরার অনিশ্চয়তাও রয়েছে নেতা-কর্মীদের মধ্যে। মনোনয়ন প্রত্যাশী অন্যরাও প্রচারণা চালাচ্ছেন কয়ছর দেশে ফিরতে পারবেন না, সুতরাং তিনি নির্বাচনেও অংশ নিতে পারবেন না।
ঐক্যফ্রন্টের আরেক শরিকদল জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্মমহাসচিব অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা এবারও এই আসনে মনোনয়ন চান। ২০০৫’এর উপ-নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের প্রার্থী হিসাবে এই আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।
এ প্রসঙ্গে মাওলানা শাহীনুর পাশা বলেন, ‘জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী আমাকে চূড়ান্ত করা হয়েছে। বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশারফ হোসেন দুই দিন আগেও বলেছেন, ‘মনোনয়নের জন্য আপনাকে ঢাকায় আসতে হবে কেন? আপনি এলাকায় কাজ করেন।’ যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ সম্পর্কে তিনি বলেন,‘কয়ছর এম আহমদ দেশে আসতে পারবেন না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্যে যখন গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে ঢিল ছুঁড়াসহ সকল কর্মসূচি-ই তাঁর নেতৃত্বে হয়েছে। এখন দেশে আসতে তাঁর (কয়ছর এম আহমদ’র) নিরাপত্তার অভাব রয়েছে। সুতরাং কয়ছর এম আহমদ ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হচ্ছেন, এমন অসত্য প্রচারণা মাঠে ছড়িয়ে ভোটারদের বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। আমি ১১ বছর ধরে মাঠে কাজ করছি, আমার ক্ষতি করার জন্য এমন প্রচারণা চালানো হচ্ছে।’
অন্যদিকে, গত তিনদিন হয় জেলাজুড়ে আলোচনা চলছে সুনামগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থী এমএ মান্নানের সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসাবে লড়বেন সিলেট জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি, এমসি কলেজের সাবেক ভিপি যুক্তরাজ্য প্রবাসী নজরুল ইসলাম। জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়নের আমরাতৈল’এর বাসিন্দা নজরুল এক সপ্তাহ্ আগে যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরেছেন।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কেন্দ্রীয় নেতা ড. কামাল হোসেন’র ঘনিষ্ট হিসাবে পরিচিত নজরুল ইসলাম গ্রীণ সিগন্যাল পেয়েই দেশে ফিরেছেন বলে তাঁর একজন ঘনিষ্ট কর্মীও এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।
এই আসনের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ’এর মৃত্যুর পর ২০০৫’এর উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী এম এ মান্নান, ৪ দলীয় জোটের প্রার্থী মাওলানা শাহীনুর পাশার সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন নজরুল ইসলাম। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ভোট পেয়ে তৃতীয় অবস্থানে ছিলেন নজরুল। ওই নির্বাচনী প্রচারণায় নজরুলের পক্ষে জগন্নাথপুরে এসেছিলেন ড. কামাল হোসেনও।
যুক্তরাজ্য প্রবাসী নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সম্পর্ক আমার। তিনি আমাকে পছন্দ করেন। তিনিও আওয়ামী লীগ করতে পারেননি, আমিও বের হয়ে এসেছি। আমাকে নির্বাচন করার কথা বলা হয়েছে। আমি চিন্তা-ভাবনা করছি। আমার ব্যক্তিগত সম্মান বাড়ানোর জন্য নির্বাচন করার কোন আকাঙ্খা নেই। দেশের প্রয়োজনে নির্বাচন করতে হলে করবো। আমার জয়ের মাধ্যমে দেশে কাঙ্খিত রাজনৈতিক অবস্থা ফিরে আসতে সহায়ক হলে, আমি নির্বাচনে অংশ নিতে রাজি।’
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান শরিক বিএনপি’র দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি ফারুক আহমদ বলেন, ‘গত বুধবারেও আমাদের নেতা যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ’র সঙ্গে আমার কথা হয়েছে, তিনি বলেছেন, শীঘ্রই দেশে ফিরবেন। তাঁর পক্ষে মনোনয়ন ফরম কিনে জমা দিয়েছি আমরা।’ একই ধরণের মন্তব্য করলেন জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাস্টারও।
এই আসনে এছাড়াও মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সহ সভাপতি এমএ মালেক খান, জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি কর্ণেল অব আলী আহমদ, বিএনপি নেতা রফিকুল ইসলাম খসরু, সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ সভাপতি যুক্তরাজ্য বিএনপির নেতা নুরুল ইসলাম সাজু, যুক্তরাজ্য বিএনপি’র নেতা আনোয়ার হোসেন, যুক্তরাজ্য বিএনপির নেতা এমএ ছাত্তার ও এমএ খলকু।সূত্র: সুনামগঞ্জের খবর।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •