বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২ | ২ ভাদ্র ১৪২৯

আজ রাতে মুখোমুখি হচ্ছে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা



আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচ। অথচ লিওনেল মেসির মুখোমুখি হতে হবে না, এটা যে প্রতিপক্ষ দলের জন্য কত বড় খুশির এবং স্বস্তির-সেটা না বললেও চলে। ক্লাব কিংবা জাতীয় দল, মেসির অনুপস্থিতি সব প্রতিপক্ষকেই বিশেষভাবে উদ্বেলিত করে। তবে সৌজন্যতার খাতিরে প্রকাশ্যে কেউ খুশির কথাটা বলেন না। কিন্তু নেইমার সেই মিছে সৌজন্যতার ধার ধারলেন না। ব্রাজিল অধিনায়ক বরং ঢোল পিটিয়ে জানিয়ে দিলেন, মেসি না থাকায় খুব খুব খুশি তিনি।

আজ মঙ্গলবার রাতে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। সৌদি আরবের জেদ্দায় ম্যাচটা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায়। কিন্তু ফুটবলপ্রেমীদের জন্য আক্ষেপের বিষয়, জেদ্দার কিং আব্দুল্লাহ স্পোর্টস সিটি স্টেডিয়ামের এই ম্যাচে খেলছেন না মেসি।

বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর বিশ্রামের নাম করে আর্জেন্টিনা জাতীয় দল থেকে ‘সাময়িক অবসর’ নিয়েছেন মেসি। বিশ্রাম শেষে কবে ফিরবেন সেটাও নিশ্চিত করে জানাননি তিনি। তিনি কবে ফিরবেন, তা নিয়ে নেইমারের মাথা ব্যাথা নেই। তবে আজকের দ্বৈরথে মেসি থাকছেন না,  এতেই খুশি নেইমার। ব্রাজিল অধিনায়ক এটাও জানিয়ে দিয়েছেন, মেসি না থাকায় তাদের পুরো দলই আলাদা একটা স্বস্তি বোধ করছে।

স্বস্তির কারণটা স্পষ্টই। ফুটবল মাঠে দুনিয়ার সবচেয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জগুলোর একটি মেসির মুখোমুখি হওয়া। তাকে থামানোর পরিকল্পনা আঁটতেই ঘাম ছুটে যায় প্রতিপক্ষ দলের কোচের। আটকানোর চিন্তায় ডিফেন্ডারদের তো রাতের ঘুমই হারাম হয়ে যায়। জেদ্দার এই ম্যাচের আগে ব্রাজিল কোচ ও ডিফেন্ডারদের সেই চ্যালেঞ্জ নিয়ে ভাবতে হচ্ছে না।

নেইমার অবশ্য এটা মানছেন, মেসির না থাকাটা ফুটবলপ্রেমীদের জন্য আক্ষেপের বিষয়। কিন্তু প্রতিপক্ষ হিসেবে তারা খুব খুশি, ‘ফুটবল যারা ভালোবাসে তাদের জন্য একটা ম্যাচে মেসির না থাকাটা হতাশার, দুঃখের। কিন্তু আমাদের জন্য এটা খুবই ভালো।’

মেসি না থাকায় আর্জেন্টিনা যে অনেকটাই দুর্বল সেটা না বললেও চলে। তবে নেইমার কিন্তু মেসিবিহীন আর্জেন্টিনাকে হালকাভাবে নিচ্ছেন না। ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে পিএসজি তারকা স্পষ্ট করেই বলেছেন, ‘আমরা কখনোই আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়দের খাটো করে দেখি না। মানের দিক দিয়ে তাদের প্রত্যেকেই অনেক ভালো। তাদের দলে অনেক প্রতিভাবান খেলোয়াড় আছে। আর্জেন্টিনার একজন পাওলো দিবালা আছে। সে এমন একজন খেলোয়াড়, যাকে আমি সত্যিই খুব পছন্দ করি। কাজেই আমাদের মনোযোগ রাখতে হবে।’

কাগজে-কলমে এটা শুধুই একটা প্রীতি ম্যাচ। কিন্তু ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচে প্রীতি বলে কিছু থাকে না। বিশেষ করে ফুটবলে। ব্রাজিল কোচ তিতে এবং আর্জেন্টিনার ফরোয়ার্ড মাউরো ইকার্দি অকপটে স্বীকারও করেছেন এটা। দুজনেই একে অন্যের সঙ্গে সুর মিলিয়ে বলেছেন, ‘ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচে প্রীতি বলে কিছু নেই। দুই দলের ম্যাচ মানেই বাড়তি কিছু।’ মানে বাড়তি চাপ, বাড়তি জয়ের ক্ষুধা।

তো বিশেষ কিছুর এই ম্যাচে পূর্ণ শক্তির দল নিয়েই মাঠে নামছে ব্রাজিল। তুলনামূলকভাবে আর্জেন্টিনা দলটি অনেকটাই তারুণ্য নির্ভর। মেসিই শুধু নন, তার সঙ্গে দলে নেই গঞ্জালো হিগুয়েইন, সার্জিও আগুয়েরো, অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়ার মতো প্রতিষ্ঠিত ফরোয়ার্ডরাও। তারপরও নিজেদের ফেভারিট মানতে নারাজ নেইমার।

পিএসজি তারকার কথা, ‘এটা খুবই কঠিন একটা ম্যাচ হবে। মাঠে আমাদের সেরা খেলাটাই খেলতে হবে। আমরা সব সময় তাদের বিপক্ষে খেলতে ভালোবাসি। মনে রাখতে হবে, ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচে ফেভারিট বলে কিছু নেই।’ ফেভারিট না মানলেও নেইমার খুশি হতে পারেন আরও একটা কারণে।

যে দিবালার কথা তিনি আলাদা করে বলেছেন, সেই দিবালাও আজকের ম্যাচে খেলবেন না বলেই জানিয়েছেন আর্জেন্টিনার অন্তর্বর্তী কোচ লিওনেল স্কালোনি। জেদ্দার এই ম্যাচের জন্য গতকাল যে একাদশ ঘোষণা করেছেন স্কালোনি, তাতে দিবালা নেই। সংবাদ সম্মেলনে কথা বলার সময় তো নেইমার খবরটা জানতেন না। তবে এতোক্ষণে তার কানে নিশ্চয় খবরটা গেছে। শুনে থাকলে তার খুশির পারদটা যে আরও একটু উপরে উঠবে, সেটা অনুমান করাই যায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন