বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২ | ২ ভাদ্র ১৪২৯

দোয়ারাবাজার সরকারি রাস্থার কাজে বাঁধা দেয়ার অভিযোগ করা হয়েছে



দোয়ারাবাজারে সরকারি সড়কের উন্নয়ন কাজে বাঁধা দেয়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন। গত কাল সোমবার উপজেলার দোহালীয়া ইউনিয়নের গোরেশপুর গ্রামের ৭নং ওয়ার্ড সদস্য মো.আলী হোসেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এলাকাবাসী ও অভিযোগের ভিত্তিতে জানা যায় ২০১৭-১৮ অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসুচির (২য়) পর্বের মেইন রাস্থা থেকে গোয়ারাই খালের নতুন ব্রীজের মুখ পর্যন্ত সংযোগ রাস্থার কাজের জন্য ২লক্ষ টাকা বরাদ্ধ হয়। প্রকল্প চেয়ারম্যান মো.আলী হোসেন, সম্প্রতি রাস্থার কাজ করতে চাইলে একই গ্রামের জফর আলীর পুত্র জয়নাল আবেদীন ও তার ভাই সহ কয়েকজন মিলে লাটি সোটা নিয়ে রাস্থার সংস্কার কাজে বাঁধা প্রধান করে এবং একই গ্রামের নতুন রাস্থার পাশের বাড়ির রানা পাল, রাস্থার কাজের স্থান দেখিয়ে দিলে রানা পালের বাড়িতে গিয়ে তাকে মারধর করেন জয়নাল আবেদীন সহ তার লোকজন।

ইউপি সদস্য প্রকল্প চেয়ারম্যান মো.আলী হোসেন বলেন, নতুন ব্রীজের অপারে একটি কমিউনিটি ক্লিনিক, বাদে গোরেশপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও বাদে গোরেশপুর গ্রামের মানুষ জন এই রাস্থা দিয়ে চলাচল করেন। আমাদের এলাকাবাসীর অনুরোধে সংসদ সদস্য রাস্থার পুর্ণ সংস্কার কাজের জন্য ২লক্ষ টাকা বরাদ্ধ দেন। সরকারি জায়গার উপরদিয়ে পুরাতন রাস্থার কাজে মাটি কাটার জন্য লোকজনদের লাগালে আমাদের গ্রামের জয়নাল,অজুদ আলী,মছদ আলী, মুজাহিদুল ইসলাম,আমিনুল ইসলাম,ইদ্রিছ আলী সহ কয়েকজন মিলে রাস্থার উন্নয়ন কাজে বাঁধা প্রদান করে।

অভিযোক্ত জয়নাল অবেদীন বলেন, এই জায়গা হচ্ছে আমাদের গ্রামের পঞ্চায়েতের লোক জনের। এখানে আমাদের পঞ্চায়েতের কবরস্থান ও রয়েছে এর জন্য আমারা আমাদের পঞ্চায়েতে পক্ষ থেকে কাজে বাঁধা দিয়েছি। এব্যপারে আমারাও একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

এব্যপারে ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আনোয়ার মিয়া আনু বলেন, নতুন ব্রীজের সংযোগ রাস্থার জন্য বরাদ্ধ হওয়ার পর রাস্থার কাজের জন্য এলাকার মুরব্বিদের নিয়ে বৈঠকও করেছি। পোরাতন রাস্থাটি সংস্কার করা হলে এলাকার লোকজন চলাচলের সুবিধা হয় বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এখন কিছু লোকজন রাস্থার কাজে বাধা প্রদান করছে বলে জানিয়েছেন ইউপি সদস্য প্রকল্প চেয়ারম্যান মো.আলী হোসেন।

এব্যপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মহুয়া মমতাজ বলেন, রাস্থার কাজের উপর উভয় পক্ষের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এক পক্ষের অভিযোগ বলছে এই পোরাতন রাস্থাটি সংস্কার হলে এলাকাবাসীর উপকারে আসে, আরেক পক্ষ বলছেন তাদের কবরস্থানের উপরদিয়ে রাস্থাটি করা হচ্ছে। উভয়ের অভিযোগটি তদন্ত পুর্বক ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন