বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২ | ২ ভাদ্র ১৪২৯

শেখ হাসিনা আগামীতেও আমাকে নৌকা প্রতিক দিবেন : অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি



অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন-জননেত্রী শেখ হাসিনা একজন উন্নয়নের নেত্রী। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ দেশ উন্নয়নের মাধ্যমে বিশে^র বুকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত হয়েছে। আমি শেখ হাসিনার উন্নয়নের কাজ করি। বিগত দিনে আপনাদের জন্য আমি উন্নয়ন করেছি। আগামীতেও আমি সুনামগঞ্জবাসীর জন্য আরো উন্নয়ন করবো।
তিনি বলেন, আমাকে প্রধানমন্ত্রী স্নেহ করেন বলেই দুই দুইটি মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব দিয়েছেন। কিন্তু কিছু লোক সুনামগঞ্জ থেকে গাড়ী ভরে ঢাকায় গিয়ে শেখ হাসিনাকে বলেছে এর ধারা উন্নয়ন হবে না। আমাদের মানুষ না। এ আমলা মানুষ। কিন্তু শেখ হাসিনা আমাকে জানেন। আমি সরকারি চাকুরীতে থাকাকালীন সময়ে দু একবার দেখেছেন। আমি কি করতে পারি।
মন্ত্রী আরো বলেন শেখ হাসিনাকে আমি চিনি। যখন আমার কোন দলীয় পরিচিতি ছিল না। তখন শেখ হাসিনা আমাকে নৌকা প্রতিক দিয়ে ছিলেন। আপনাদের ভোটে নির্বাচিত হয়ে সংসদে গিয়ে উন্নয়নের কথা বলেছি। শেখ হাসিনা আগামীতেও আমাকে নৌকা প্রতিক দিবেন। নৌকা প্রতিক না পাওয়া পর্যন্ত আমি কাউকে বলবো না। নৌকা প্রতিক আমি পেয়েছি।
বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের রথপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন তিনি।
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আপনার অতীতে অনেক নেতা দেখেছেন, সরকার দেখেছেন, কিন্তু কে আমাদের জন্য কাজ করেছে? কেউ করেনি। সুনামগঞ্জ এখন উন্নয়নে জোয়ার বইছে। সুনামগঞ্জে টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট হচ্ছে, সুনামগঞ্জ মেডিকেল কলেজ হচ্ছে, আগামী নির্বাচনের পরে যধি আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে তাহলে সুনামগঞ্জ একটি আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হবে, এর জন্য আমরা এখন থেকেই কাজ শুরু করে দিয়েছে। তাই আসুন সকলে মিলে উন্নয়নের স্বার্থে সকল বিবেদ ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করি।
তিনি বলেন, রাজনীতি আরও ১৫-২০ বছর পরেও করতে পারবেন। কিন্তু উন্নয়ন করতে পারবেন না। বাংলাদেশের এখন উন্নয়নের সময়। তাই দল মত নির্বিশেষে উন্নয়নের স্বার্থে আওয়ামী লীগকে নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে আবার ক্ষমতায় আনতে হবে।
কর্মী সভায় পশ্চিম পাগলা ইউপি চেয়ারম্যান মো. নুরুল হকের সভাপতিত্বে, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা তেরাব আলীর পরিচালনায়, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি হাজী তহুর আলী, সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আবাব মিয়া, উপজেলা যুবলীগ সিনিয়র সহ সভাপতি মো. নুর হোসেন, ইউপি সদস্য মকবুল হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুর রহমান আসাদ।
সভার শুরুতেই কোরআন তেলাওয়াত করেন জিএম সাজ্জাদুর রহমান ও গীতা পাঠ করেন রথপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশীষ কুমার চক্রবর্তী।
এসময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণগাঁও গ্রামের প্রবীন মুরুব্বী আব্দুল মছব্বির, দিলু মিয়া, ডা. জিল্লুর রহমান, মাষ্টার আব্দুল খালিক, সাজিদ মিয়া, সুরুজ আলী, আব্দুছ ছমাদ, ইউপি সদস্য বদশা মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা নরেশ দাস, কাজল দাস, নির্মল চন্দ্র দাস, ইউপি সদস্য নুরুল হক, জমিরুল হক, মাষ্টার লিটু মিয়া প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন