বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২ | ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯

কোটা বহালের দাবিতে দ্বিতীয় দিনেও আন্দোলন



সরকারি চাকরিতে ১ম ও ২য় শ্রেণিতে ৩০% মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ের আন্দোলন দ্বিতীয় দিনে গড়িয়েছে। এর আগে বুধবার রাত ৮টার দিকে শাহবাগ মোড় অবরোধ করে আন্দোলন শুরু করেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তানসহ কয়েকটি সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে আরো কিছু আন্দোলনকারী আগে থেকে অবস্থানকারীদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। শাহবাগ মোড় অবরোধ করায় ওই এলাকায় ব্যাপক যানজট দেখা দিয়েছে।

মৎস্যভবন থেকে যানবাহন শাহবাগের দিকে চলতে পারছে না। আবার মিরপুর থেকে আসা যানবাহন মতিঝিল কিংবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে ঢুকতে পারছে না। তবে এলিফ্যান্ট রোডের গাড়িগুলো হোটেল কন্টিনেন্টালের দিক দিয়ে ঘুরিয়ে দিচ্ছেন দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা।

আন্দোলনকারী ইব্রাহীম মন্ডল পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রীর ওপর আস্থা আছে। তাকে স্বাধীনতাবিরোধীরা ভুল বুঝিয়েছে। আমরা আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ ছাড়ব না।’

এদিকে, আন্দোলন ঘিরে শাহবাগ এলাকায় যাতে কোনো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না হয় সেজন্য আন্দোলনকারীদের আশপাশে পুলিশের ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে।

এর আগে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক আল আমিন পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ ছাড়ব না৷ আমরা সারারাত এখানে অবস্থান করব। সরকারি চাকরিতে ৩০% মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহাল করলে আমরা রাজপথ ছাড়ব।’

এ সময় মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ব্যানারেও শাহবাগ মোড়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে দেখা গেছে।

এদিকে, মুক্তিযোদ্ধা কোটা ৩০% বহালের দাবিতে আন্দোলনকারী মুক্তিযুদ্ধ সংসদ সন্তান কমান্ডের পাশে থাকবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী৷ তিনি বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে শাহবাগ মোড়ে এসে আন্দোলনকারীদের পাশে থাকার এ ঘোষণা দেন।

এ সময় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী শাহবাগ মোড়ে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে দেখা করতে এলে মুক্তিযুদ্ধ সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আতিকুল ইসলাম বাবু গোলাম রাব্বানীকে একাত্মতা ঘোষণা করতে বলেন। পরে তিনি তাদের পাশের থাকার ঘোষণা দেন।

এ সময় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এই যৌক্তিক আন্দোলনে ছাত্রলীগ আপনাদের পাশে থাকবে।

আন্দোলনকারীদের জনদুর্ভোগ না করে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনাদের এই যৌক্তিক আন্দোলনের কথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পৌঁছানো হবে।’

উল্লেখ্য, বুধবার সকালে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন।

এ (কোটা বাতিল) সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে মঙ্গলবার রাত ৮টা থেকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড ও অন্যান্য কয়েকটি সংগঠনের নেতাকর্মীরা রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন