সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯

এক কিশোরকে উদ্ধার করতে গিয়ে মালয়েশিয়ায় ৬ ডুবুরির মৃত্যু



তারা ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরকে খুঁজতে ওই জলাশয়টিতে নেমেছিল। ওই কিশোর তার বন্ধুদের সঙ্গে মাছ ধরতে গিয়ে ওই জলাশয়ে পড়ে যায় বলে ধারণা করা হচ্ছে, জানিয়েছে বিবিসি।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ডুবুরিরা জলাশয়ে নামার পর হঠাৎ ঘূর্ণিপাকে আটকা পড়ে যায় আর তীব্র স্রোতে তাদের দেহের সঙ্গে লাগানো যন্ত্রপাতি খুলে যায়।

প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলোতে বলা হয়েছে, সেলানগোর রাজ্যের সেপাং জেলার ওই খনির জলাশয়টিতে বুধবার ওই কিশোর ও তার বন্ধুরা মাছ ধরতে গিয়েছিল, মাছ ধরা শুরু করার মূহুর্তে ওই কিশোর পানিতে পড়ে যায়।

জলাশয়টিতে তল্লাশি ও উদ্ধার অভিযান চালাতে আসা ডুবুরিরা সব নিরাপত্তা পদ্ধতি অনুসরণ করেই পানিতে নেমেছিল বলে জানিয়েছেন সেপাং জেলার পুলিশ প্রধান আবদুল আজিজ আলি।

ডুবুরিরা সবাই ডাইভিং যন্ত্রপাতিতে পরিপূর্ণভাবে সজ্জিত ছিল এবং সবাই একটি দড়ির সঙ্গে বাঁধা ছিল বলে জানিয়েছেন তিনি।

আজিজ রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা বেরনামাকে বলেছেন, “তীব্র স্রোতের কারণে সবাই পানির মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছিল এবং এতে তাদের যন্ত্রপাতি খুলে যায়।”

নিউ স্ট্রেইটস টাইমসকে মালয়েশিয়ার দমকল বাহিনীর মহাপরিচালক মোহাম্মদ হামদান ওয়াহিদ বলেছেন, “ওই জলাশয়ে একটি ঘূণিস্রোতের উৎপত্তি হয় আর তীরে থাকা একটি দল জানিয়েছে তারা ওই ছয় ডুবুরিকে এর থেকে বের আসার চেষ্টা করতে দেখেছেন।”

সহকর্মীরা তাদের উদ্ধার করার চেষ্টার মধ্যেই প্রায় আধঘন্টা পার হয়ে যায়। যখন ওই ডুবুরিদের পানি থেকে বের করে আনা হয় তখন সবাই অজ্ঞান ছিলেন, পরে তাদের জ্ঞান আর ফিরেনি।

“এই প্রথম ছয় জন একসঙ্গে মারা গেল। আমাদের জন্য খুব দুঃখের দিন এটি,” বেরনামাকে বলেছেন ওয়াহিদ।

ঘটনার দিন সকালে ভারি বৃষ্টিপাত হয়েছিল, এতে সৃষ্টি হওয়া পানির একটি প্রবল ধারা জলাশয়টিতে নেমে আসার কারণেই ওই ঘূর্ণিস্রোত তৈরি হয়েছিল; প্রাথমিক তদন্তে এমন ধারণা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন ওয়াহিদ।

নিখোঁজ ওই বালকের খোঁজে বৃহস্পতিবার আবার তল্লাশি অভিযান শুরু করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন