শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯

মহাজোটের শরীক জাপা ও ২০ দলীয় জোটের শরীক খেলাফত মজলিস নির্বাচনী মাঠে তৎপর



সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার) আসনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট ও আ’লীগের নেতৃতাধীন মহাজোটে আসন ভাগ চায় তাদের শরীকরা। একাদশ নির্বাচনের দিনক্ষণ যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বৃহত্তর দুই জোটের শরীক দল স্ব স্ব জোটের মনোনয়ন পেতে নির্বাচনী এলাকায় কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন। ইতোমধ্যে নিজেদের দলের হাই কমান্ডের সবুজ সংকেত পেয়ে প্রতিনিয়ত নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন তারা। এ আসনে বড় দুই দলের অভ্যন্তরীণ বিভাজন ও দলীয় কোন্দলকে কাজে লাগিয়ে জোটের শরীক হিসেবে এ আসনটির ভাগ চায় বিএনপি’র নেতৃত্বাধীন খেলাফত মজলিস ও আ’লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের শরীক জাতীয়পার্টি। ২০ দলীয় জোটের মনোনয়ন পেতে এ আসনে ইতিমধ্যে খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রিয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শফিক উদ্দিন ও মহাজোটের মনোনয়ন দৌড়ঝাঁপে তৎপর রয়েছেন জাপা’র কেন্দ্রিয় সদস্য জাহাঙ্গীর আলম।
এছাড়া এ আসনে জাতীয়পার্টির সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ মাস্টার ও জাপা নেতা আ,ন,ম অহিদ কনা মিয়াও মনোনয়ন পেতে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। দুই জোটের শরীক দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা নিজেদের দলীয় ব্যনারে নির্বাচনী এলাকায় সভা, সমাবেশ ও গণসংযোগে ব্যস্ত রয়েছেন। তাদের দাবি, জোটগতভাবে এ আসনটি চাওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে নিজ নিজ দলের হাই কমান্ড জোট প্রধানদের মনোনয়ন দেওয়ার প্রাথমিক তালিকা প্রেরণ করা হয়েছে। জোটগত ভাবে তারা এ আসনে মনোনয়ন পাচ্ছেন এমনিই জানিয়েছেন খেলাফত মজলিস ও জাতীয়পার্টির নেতা কর্মীরা।
অপর দিকে আ’লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক নির্বাচনী মাঠে সরব রয়েছেন। তার সমর্থক ও দলীয় নেতাকর্মীরা মনে করেন, বর্তমান সংসদ সদস্য হিসেবে শেষ মেষ মহাজোটের টিকিট পাবেন মুহিবুর রহমান মানিক। বৃহত্তর স্বার্থে তাকে মনোনয়ন দিলে এ আসনটি আ’লীগের উঠে আসবে। এছাড়া আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে মাঠে রয়েছেন শামীম আহম চৌধুরী ও দোয়ারাবাজার উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক ফরিদ আহমদ তারেক। দুই উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায় তাদের সমর্থক ও কর্মীরাও নিজেদের সম্ভাব্য প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন। তারাও আশাবাদী তাদের সমর্থিত ব্যক্তিরা দলীয় মনোনয়ন পাবেন।
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি’র একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশীরা দীর্ঘদিন ধরে ২০ দলের মনোনয়ন পেতে হাই কমান্ডের সঙ্গে লবিং করে আসছেন। দলীয় মনোনয়ন পেতে চান জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও কেন্দ্রিয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেক এমপি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন, বিএনপি’র আরেক জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক ছাতক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী এবং বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার সৈয়দ মুনসিফ আলী। দীর্ঘদিন ধরে দুই উপজেলায় তিন নেতার নেতৃত্বাধীন পৃথক পৃথক কমিটির মাধ্যমে চলছে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের কার্যক্রম। প্রত্যেক বলয়ের তৃণমূল নেতাকর্মীরা তাদের সমর্থিত বিএনপির মনোনয়ন দলীয় মনোনয়ন পাবেন বলে আশাবাদী।
সমীক্ষায় দেখা গেছে, সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার) আসেন স্বাধীনতা পরবর্তী এ যাবৎ বিভন্ন সমেয় স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য প্রার্থী ৩ বার, আ’লীগ ৩ বার, জাতীয়পার্টি ২ বার, বিএনপি ১ বার এবং জাসদ ১ বার জাতীয় সংসদ নির্বাচেন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।
এখন শুধু অপেক্ষার পালা ছাতক দোয়ারাবাজার নির্বাচনী এলাকায় দুই জোটের মনোনয়ন কারা পাচ্ছেন। আর বিএনপি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করলে সারা দেশের ন্যায় এ আসনেও ভোটের হিসাব নিকাশ হবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা মূলক। তাই জোট-মহাজোটের সমীকরণে ভোটাররাও শেষ ভেবে চিন্তে নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সিদ্ধান্ত নিবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন