সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯

সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক সড়কটি রাস্তার দুই পাশে নেই মাটি



ছবি-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জয়কলস এলাকার থেকে তোলা।

সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক সড়কটির রাস্তার অধিকাংশ জায়গায় দুই পাশে নেই মাটি। রাস্তাটি ভেঙ্গে চৌচির আর খানাখন্দে ভরা। আঞ্চলিক মহা সড়কটি ভাঙ্গা ও সরু থাকায় প্রতিনিয়তই ভোগান্তি আর দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ এবং যানবাহন চালকেরা। সিলেট সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহা সড়কটির গোবিন্দগঞ্জ পয়েন্ট এলাকা থেকে নীলপুর বাজার পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার রাস্তায় অংশে অংশে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে এবং অধিকাংশ জায়গায় রাস্তার দুই পাশে নেই মাটি। সড়কের এ অংশের দুই পাশে মাটি না থাকায় এবং মূল সড়ক থেকে দুই পাশ এক থেকে দেড় ফুট, কোনো কোনো জায়গায় ৬ ফুট তারও উপরে নিচু হওয়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। প্রায়ই সড়ক বিভাগের তত্ত্ব¡াবধানে পানি ভরা গর্তগুলোতে ইট ফেললেও স্বল্প সময়ের মধ্যেই আবার তা সাবেক অবস্থায় ফিরে যাচ্ছে। প্রতিনিয়ত ছোটখাট দুর্ঘটনা ছাড়াও যানবাহন বিকল হয়ে যাচ্ছে এই রাস্তায়।

সম্প্রতি সরজমিন দেখা গেছে, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলাধীন, সুনামগঞ্জ সদর ও ছাতক উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ এলাকা থেকে নীলপুর বাজার পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশে বিটুমিনের তৈরি রাস্তা ছিল। কিন্তু মূল সড়ক থেকে মাটির অংশ এক থেকে দেড় ফুট, দুই ফুট এবং কোনো কোনো জায়গায় তিন ফুট নিচু হওয়ায় অনেক জায়গায় রাস্তাটির প্রশস্ততা কমে গেছে, অনেক স্থানে দুই পাশে মাটি নেই ও ভেঙ্গে গেছে। পাশাপাশি আঞ্চলিক মহা সড়কটির গোবিন্দগঞ্জ পয়েন্টে হইতে ধারণ বাজার এলাকা পর্যন্ত, জাউয়া বাজার পয়েন্ট সহ কাড়ারাই পয়েন্ট পর্যন্ত, দামোধরতপী নোয়াগাঁও হইতে পাগলা বাজার পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে পানি জমে গিয়েছে। ফলে গাড়ি চালানো বা ক্রসিংয়ের সময় একটু অসতর্ক থাকলেই এসব পয়েন্টে গাড়ি উল্টে যায়।

অপরদিকে সিলেট সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহা সড়কের মূল সড়ক থেকে মাটির অংশ নিচু হওয়ার কারণে বাস, ট্রাক, লরি, সাইকেল, মোটরসাইকেল, ভ্যান, রিকশাসহ হালকা যানবাহনের চালকেরা দ্রুতগতির বাস ও ট্রাককে সাইড দিতে গিয়ে নিচু জায়গায় যানবাহন পড়ে উল্টে গিয়ে দুর্ঘটনা এবং হতাহতের ঘটনা ঘটছে। সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহা সড়কে যাত্রীবাহী বাস সহ অনন্ত সহস্রাধিক বাস, ট্রাক, লরি সুনামগঞ্জ থেকে সিলেট-ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য স্থানে মালামাল নিয়ে এ সড়ক দিয়ে চলাচল করে থাকে।

আব্দুল মজিদ কলেজের অধ্যক্ষ মো. রবিউল ইসলাম বলেন, এ সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করে থাকি। এক বছরেরও বেশী সময় ধরে খুবই খারাপ অবস্থা। গত ৪/৫ মাস যাবত রাস্তাটির মধ্যে অগনিত বড় বড় গর্ত এবং কোথাও কোথাও ছোট ছোট খালে পরিনত হয়েছে। যার কারনে এ সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল করতে খুবই দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। আমরা জরুরী ভিত্তিতে সড়কটির মেরামত করার দাবী করছি।

স্থানীয় সাংবাদিক সোহেল তালুকদার বলেন, সিলেট সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহা সড়কের দুই পাশে কিছুদিন পূর্বে বিভিন্ন পয়েন্টে পয়েন্টে যত সামান্য মাটি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বৃষ্টির কারণে এখন আর রাস্তার পাশে মাটি নাই। যেটুকু রয়েছে এখন তা কাঁদা আর কর্দমাক্ত। এই রাস্তাটির জন্য স্থায়ী মেরামত করা প্রয়োজন।

সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম জানান, সিলেট সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহা সড়কের বিভিন্ন অংশে কাজ শুরু হয়েছে। আশাকরি অল্পদিনের মধ্যে রাস্তায় খানখন্দক থাকবে না। রাস্তা মেরামতের পাশপাশি রাস্তার পাশে থাকা সোল্ডারিংয়ের বিষয়টিও অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করা হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন